1. md.masudrana2008@gmail.com : admi2017 :
  2. info.motaharulhasan@gmail.com : motaharul :

টাকার সংকটে ধার করে চলছে অনেক ব্যাংক

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৫২ বার
টাকার সংকটে ধার করে চলছে অনেক ব্যাংক
টাকার সংকটে ধার করে চলছে অনেক ব্যাংক

অর্থনীতি ডেস্ক: ডলার সংকটের এ সময়ে টাকার টানাটানিতে পড়েছে ব্যাংক খাত। সংকট কাটাতে নিয়মিত ধার করে চলছে অনেক ব্যাংক। এত ধারের পরও এক সময় ভালো অবস্থানে থাকা কয়েকটি ব্যাংক এখন নিয়মিতভাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বিধিবদ্ধ নগদ জমা (সিআরআর) রাখতে ব্যর্থ হচ্ছে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত রোববার সপ্তাহের প্রথম দিন কয়েকটি ব্যাংক ২০ হাজার ৮৫২ কোটি টাকা ধার করেছে। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংক দেয় ১৪ হাজার ১৫ কোটি টাকা। কলমানিসহ আন্তঃব্যাংক থেকে নেওয়া হয় ৬ হাজার ৮৩৭ কোটি টাকা। আন্তঃব্যাংক লেনদেনে সুদহার বেড়ে ৯ দশমিক ৭৫ শতাংশে ওঠে। এর আগের রোববার ব্যাংকগুলোর ধারের পরিমাণ ছিল ২২ হাজার ১১ কোটি টাকা। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংক দেয় ১৫ হাজার ৭৪৬ কোটি এবং আন্তঃব্যাংক থেকে ৬ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা নেওয়া হয়। ওই দিন সর্বোচ্চ সুদ ছিল ৯ শতাংশ। এভাবে প্রায় প্রতিদিনই বড় অঙ্কের ধার করছে ব্যাংকগুলো। এরপরও শরিয়াহভিত্তিক ৫টিসহ আরও কয়েকটি ব্যাংক অনেক দিন ধরে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সিআরআর সংরক্ষণে ব্যর্থ হচ্ছে। এসব ব্যাংকের ওপর আরোপ করা দণ্ডসুদ পরিশোধের মতো অবস্থাও নেই। যে কারণে দণ্ডসুদ পরিশোধে সময় নিয়েছে সংকটে থাকা ব্যাংকগুলো। জানতে চাইলে ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান ও ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আর এফ হোসেন সমকালকে বলেন, ‘বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধি তেমন হচ্ছে না। এরপরও কেন ধার করতে হচ্ছে বলতে পারব না। তবে সাধারণভাবে কোনো ব্যাংকের যখন ঋণ ফেরত কমে যায় তখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক বা আন্তঃব্যাংক কলমানি থেকে ধার করতে হয়।’

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আইএমএফের পরামর্শে বাংলাদেশ ব্যাংক এরই মধ্যে নীতি সুদহার বাড়িয়েছে। এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে রেপো নিতে গুনতে হচ্ছে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ সুদ। স্পেশাল রেপোতে তা ৯ দশমিক ২৫ শতাংশ। এর প্রভাবে ব্যাংকের ১৮২ দিন মেয়াদি ট্রেজারি বিলের গড় সুদহার বাড়বে। এর সঙ্গে এখন গ্রাহক পর্যায়ে সুদহার নির্ধারণ করতে যোগ করা হবে তিন শতাংশের পরিবর্তে সাড়ে তিন শতাংশ। এতে সুদহার যে আরও বাড়বে তা নিশ্চিত করে বলা যায়। বিনিয়োগ স্থবিরতার কারণে এমনিতেই বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি কমে আগস্ট শেষে ৯ দশমিক ৭৫ শতাংশে নেমেছে। বেসরকারি খাতে বিদেশি ঋণ সরাসরি কমেছে। ফলে সাধারণভাবে তহবিল চাহিদা কমার কথা। তবে কয়েকটি ব্যাংকের বিতরণ করা বিপুল অঙ্কের বেনামি ও ভুয়া ঋণ আর আদায় হচ্ছে না। আবার সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিভিন্ন নীতিসহায়তার কারণে পুরো ঋণ ফেরত না দিলেও খেলাপি হচ্ছে না। এতে করে অর্থপ্রবাহ কমে তারল্য সংকটে পড়েছে ব্যাংকগুলো।

ব্যাংকাররা জানান, বিভিন্ন কারণে একদিকে অর্থ প্রবাহ কমেছে, অন্যদিকে নানা উপায়ে আমদানি নিয়ন্ত্রণের পরও বিদেশি উৎস থেকে যে পরিমাণ অর্থ আসছে খরচ হচ্ছে তার চেয়ে বেশি। বিশেষ করে চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে রেমিট্যান্স ১৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ কমেছে। আবার বেসরকারি খাতে যে পরিমাণ ঋণ আসছে পরিশোধ করতে হচ্ছে তার চেয়ে বেশি। যে কারণে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে বিপুল অঙ্কের ডলার বিক্রি করতে হচ্ছে। ডলারের বিপরীতে বাজার থেকে টাকা উঠে আসছে। চলতি অর্থবছরের শুরু থেকে গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংকের কাছে ৩ দশমিক ৭৬ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এর বিপরীতে উঠে এসেছে ৪১ হাজার কোটি টাকার বেশি। গত অর্থবছর বিক্রি করা হয় ১৩ দশমিক ৫৮ বিলিয়ন এবং ২০২১-২২ অর্থবছরে ৭ দশমিক ৬২ বিলিয়ন ডলার। যেখানে বাজার থেকে উঠে আসে ২ লাখ কোটি টাকার মতো। এভাবে ডলার বিক্রির ফলে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমে এখন ২১ বিলিয়ন ডলারে নেমেছে। গত অর্থবছরের একই সময়ে যা ছিল ৩৬ দশমিক ৫৫ বিলিয়ন ডলার। এর আগে ২০২১ সালের আগস্টে সর্বোচ্চ রিজার্ভ উঠেছিল ৪৮ বিলিয়ন ডলারের ওপরে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 BanglarBibek
Customized BY NewsTheme